ঢাকামঙ্গলবার, ২১শে মে ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
ঢাকামঙ্গলবার, ২১শে মে ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আইসিটি
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আফ্রিকা
  6. ইসলাম
  7. এশিয়া
  8. কলাম
  9. ক্রিকেট
  10. খেলা
  11. চাকরী
  12. জাতীয়
  13. জেলা
  14. জেলা সংবাদ
  15. নিয়োগ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সময়ই বলবে নির্বাচনে অংশ নেব কি না

admin
এপ্রিল ১৬, ২০২৩ ৬:৩১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সিলেটে বিএনপির মনোনয়নে টানা দুবারের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী এবার নির্বাচনে অংশ নেবেন কি না, তা নিয়ে নগরজুড়ে আলোচনা চলছে। বর্তমান সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার অবস্থানে অটল থাকার কথা বলছে বিএনপি। সে পটভূমিতে আগামী ২১ জুন সিলেট সিটি করপোরেশনের এই নির্বাচনে অংশ নেওয়া না নেওয়ার প্রশ্নে সিদ্ধান্ত নিতে তিনি লন্ডনে গেছেন গত ২ এপ্রিল। সেখানে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে দেখা করে আলাপ–আলোচনা করেছেন আরিফুল হক চৌধুরী। তবে এরপরও তিনি নির্বাচন নিয়ে তাঁর সিদ্ধান্তের প্রশ্নে রহস্য রেখেছেন। এখন ১৫ এপ্রিল তাঁর দেশে ফেরার কথা রয়েছে। লন্ডন থেকে এই নির্বাচন নিয়ে প্রথম আলোর প্রতিনিধির সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপে কথা বলেছেন আরিফুল হক চৌধুরী

 

আরিফুল হক চৌধুরী
আরিফুল হক চৌধুরী

আপনি নির্বাচনে অংশ নেবেন বলে নগরজুড়ে প্রচারণা আছে। আবার বিএনপির একটা অংশ মনে করছেন, আপনি নির্বাচনে অংশ নেবেন না।

আরিফুল হক চৌধুরী: আপনারা জানেন, আমি বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে আছি। এ ছাড়া সিলেট জেলা কমিটিরও আমি একজন সদস্য। গত দুটি নির্বাচনেই আমি বিএনপির মনোনয়নে প্রার্থী হয়ে বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছি। তাই দলের সিদ্ধান্তের বাইরে যাওয়ার সুযোগ আমার খুব একটা নেই।

কিন্তু আপনার দল তো নির্বাচনে অংশ নেবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কিছুদিন আগেও বলেছেন, বিএনপি এখন কেবল সরকার পতনের আন্দোলন নিয়েই ব্যস্ত। এ সরকারের অধীন তাঁরা কোনো নির্বাচনেই যাবেন না।

আরিফুল হক চৌধুরী: এটা ঠিক, বিএনপি বর্তমান সরকারের অধীন কোনো নির্বাচনে যাচ্ছে না। দলের কর্মী হিসেবে আমাকে এটা মানতেই হবে। তবে যেহেতু আমি দুবার নির্বাচিত হয়ে সিলেট নগরের মানুষের কাছে দলমত–নির্বিশেষে ভালোবাসা পেয়েছি, এ অবস্থায় অনেকেই নির্বাচনে এবারও অংশ নেওয়ার জন্য আমাকে অনুরোধ করছেন। এখানে (লন্ডন) এসে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসনের সঙ্গে কথা বলেছি। দেশে ফিরে বিস্তারিত জানাব।

গতকাল লন্ডনে যুবদলের ইফতার মাহফিলে তারেক রহমানের উপস্থিতিতে আপনি বক্তব্য দিয়েছেন। সেখানের একটি বক্তব্যের কিছু অংশ ফেসবুকে ছড়িয়েছে। এতে দেখা যাচ্ছে, আপনি বলছেন, বিএনপির কেউ এ সরকারের অধীন কোনো নির্বাচনে যাবেন না। বিএনপি পরিবারের কোনো সদস্য এ পথে পা দেবেন না। তবে কি আপনি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন না?

আরিফুল হক চৌধুরী: আমার সঙ্গে নেতার (বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন) কথা হয়েছে। তিনি আমাকে একটা সিগন্যালও দিয়েছেন। তবে এটা রেড সিগন্যাল নাকি গ্রিন সিগন্যাল—সেটা আমি সময়মতোই সিলেটের মানুষের কাছে প্রকাশ করব। ওয়েট অ্যান্ড সি, সময়ই বলবে নির্বাচনে অংশ নেব কি না।

তাহলে তো নির্বাচন করবেন কি করবেন না, এ ব্যাপারে মানসিকভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েই ফেলেছেন। জানাবেন কখন? আপনার অনুসারীরা তো দোটানায় আছেন।

আরিফুল হক চৌধুরী: দেশে ফিরেই ঘটা করে জানাব। এর আগে কিছু বলতে চাই না।

কিন্তু অধিকাংশ গণমাধ্যমই তো লিখছে, আপনি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন না!

আরিফুল হক চৌধুরী: এ বিষয়ে আমার কোনো মন্তব্য নেই। আমি একটু আগেই বলেছি, দেশে ফিরেই সব জানাব। এই কয়টা দিন নগরের ভোটার, আমার দলের নেতা-কর্মী এবং অনুসারী-সমর্থক-শুভানুধ্যায়ীদের ধৈর্য ধরার অনুরোধ করছি।

আপনি কি মনে করেন এ সরকারের অধীন নির্বাচন সুষ্ঠু হবে?

আরিফুল হক চৌধুরী: বিএনপি সব সময়ই বলে আসছে, বর্তমান সরকারের অধীন কোনো নির্বাচনই সুষ্ঠু হওয়া সম্ভব নয়। অতীতের নির্বাচনগুলোই এর বড় প্রমাণ। এখানে বেশ কয়েকটা প্রশ্ন উত্থাপিত হয়। প্রথমত, জাতীয় নির্বাচনেই যেখানে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট হচ্ছে না, সেখানে সিটি নির্বাচনের ভোট কেন ইভিএম পদ্ধতিতে হবে? এ ছাড়া নগরের বাসিন্দারা এর আগে ইভিএমে ভোট দেননি, এটাতে তাঁরা অভ্যস্ত নন। তার মানে একটা ‘কিন্তু’ এখানে লুকিয়ে আছে। দেখা গেল, জনগণ ভোট দিলেন এক জায়গায়, আর ভোট চলে গেল আরেক জায়গায়। অনেকের ধারণা, নির্বাচনে কারচুপি করতেই ইভিএমে ভোট নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন।

দ্বিতীয়ত, অনেকেই বলছেন, সরকারি দল এখন থেকেই নাকি সিলেটের স্থানীয় প্রশাসনে কর্মকর্তাদের রদবদল শুরু করেছে কেবল নির্বাচনকে সামনে রেখে। খেয়াল করে দেখবেন, সম্প্রতি সিলেটে বিএনপিকে কোনো কর্মসূচি করতে দিচ্ছে না পুলিশ। অন্য দলগুলো বাধাহীনভাবে কর্মসূচি করতে পারলেও বিএনপি পারছে না। বরং বিএনপির নেতা-কর্মীদের নানাভাবে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। এসব ঘটনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখেই করা হচ্ছে বলে আমার অনুমান। অথচ এই সিলেটের রাজনৈতিক সম্প্রীতি কিন্তু খুবই চমৎকার ছিল। এখন ধীরে ধীরে পরিস্থিতি বদলে যাচ্ছে।

নির্বাচনের আগেই যেভাবে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বিনষ্ট করা হচ্ছে, সেখানে নির্বাচনে কী ঘটতে পারে, সেটা আগাম অনুমান করা যায়। সিলেটে ভোটে জেতা কোনোভাবেই সম্ভব নয়, তাই আওয়ামী লীগ কৌশলে জেতার চেষ্টা করছে। এ অবস্থায় কোনোভাবেই সুষ্ঠু ভোট হবে বলে আমি বিন্দুমাত্রও বিশ্বাস করি না।

সময় দেওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

আরিফুল হক চৌধুরী: প্রথম আলোর অগণিত পাঠককে আমার শুভেচ্ছা। একই সঙ্গে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি সিলেট নগরের বাসিন্দাদের।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।